ধর্ম নয় বরং অন্য কোনও কারনে বচসা, পূরবীর ভাইরাল ভিডিওর সত্যতা

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

দেশজুড়ে যখন বইছে সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প তখন আরো একবার একটি বিভ্রান্তিমূলক ভিডিও প্রকাশিত হলো সোশ্যাল মিডিয়ায় এবং প্রকাশের সাথে সাথেই ভাইরাল হলো, দেখলো প্রায় পনেরো লক্ষ মানুষ!  শাসক দল ও মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রতি তাদের “তোষণ নীতি” কি সত্যি এতটা প্রকট যে একটি যুবতী কে শেষ পর্যন্ত সোশ্যাল মিডিয়ায় মানুষের কাছে আবেদন করতে হলো ন্যায় বিচারের জন্য? মূলত গত কাল থেকেই ভাইরাল এই ভিডিও, যেখানে দেখা যায় এক  ক্রন্দনরত যুবতীকে  যিনি  জনগনের কাছে সুবিচার ভিক্ষা চাইছেন ।হৃদয়স্পর্শী এই ভিডিও প্রকাশের কিছু ক্ষণের মধ্যেই নেটিজেনদের সহানুভুতি আদায় করে নেয়। বারাসাত নপাড়া নেতাজী পল্লীর বাসিন্দা ঐ যুবতী ঐ ভিডিওতে জানান যে তাকে “বাড়িতে ঢুকে মারধোর করেছে একটি মুসলিম ছেলে তার মা ও প্রেমিকা”।এই ঘটনার পরে ঐ যুবতী থানায় ডায়েরী করলে দুই গাড়ি পুলিশ আসে। তবে যুবতীর দাবী যে- এই ঘটনায় পুলিশ কোন পদক্ষেপ নেয়নি সেক্ষেত্রে ওই অঞ্চলের তৃণমূলের নেতারা নাকি অভিযুক্ত  যুবককে রক্ষা করার ও ঘটনাটিকে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। ওই যুবতী ভিডিওটিতে উক্ত ঘটনার সুবিচার চায় এবং অন্যথায় আত্মহত্যার হুমকিও দেয়। এই ভিডিও প্রকাশের পর কার্যত ই শাসকদলের বিরোধী দের হাতে একটি বড় অস্ত্র চলে এসেছে। শাসক দলের বিরুদ্ধে সংখ্যালঘু তোষণের অভিযোগ এনে ভিডিওটি প্রচুর পরিমাণে শেয়ার করছে কিছু মানুষ। বলাই বাহুল্য রাজ্যে সাম্প্রদায়িকতার রাজনীতিতে মাটি না পেলেও শাসক দলের বিরুদ্ধে বিজেপির মূল অভিযোগ ‘সংখ্যালঘু তোষণ’ তাই এই ভিডিও তাদের সেই অভিযোগ প্রমাণের ক্ষেত্রে খুবই কার্যকর হয়ে উঠেছে। নিজেকে পূরবী ব্যানার্জি বলে দাবি করা ভিডিওর সেই যুবতী একবারও সেই ভিডিওতে উল্লেখ করছেন না ঘটনার প্রেক্ষাপট।ভিডিওর মূল লক্ষ্য খুব পরিষ্কারভাবেই শাসক দল তৃণমূল, মুসলিম সম্প্রদায় ও তাদের নিয়ে তথাকথিত “তোষণের রাজনীতি”। দেখুন সেই ভিডিও –

দ্বিতীয় ভিডিও 

 

এই ভিডিও ফেসবুকে বহুল পরিমাণে শেয়ার হচ্ছে এবং উস্কে দিচ্ছে মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রতি ঘৃণা। বহু মানুষ এটা শেয়ার করছেন কিন্তু কেউই ঘটনার সত্যতা বিচার করার কষ্ট টুকু করতে চাইছেন না। এই ভিডিও প্রথম থেকেই আমাদের মনে যথেষ্ট সন্দেহের উদ্রেক করে তাই আমরা ‘পৃথিবী ডট নেট’ ওয়েব পত্রিকার তরফ থেকে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চালাই ফেসবুকে এবং চাঞ্চল্যকর ভাবে উঠে আসে তথাকথিত পূরবী ব্যানার্জি নামক ওই যুবতীর অন্য একটি ভিডিও যাতে পুরো ঘটনার বিবরণ পাওয়া যায় তারই মুখে। ওই ভিডিও থেকে জানা যায় পূরবী ব্যানার্জি মূলত একজন অর্কেস্ট্রা ডান্সার। বিভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠানে মঞ্চ প্রস্তুত করে যেসব জনপ্রিয় গান ও অর্কেস্ট্রা প্রোগ্রাম হয়ে

থাকে সেই সব মঞ্চে ডান্সার হিসেবে নৃত্য পরিবেশন করেন ওই যুবতী। বয়ান অনুযায়ী সাম্প্রতিক তার দলের কোন একটি শোতে “রাহুল মণ্ডল” ওরফে “মোশারফ হোসেন” ও তার প্রেমিকা “ঋদ্ধি” ওরফে “চুমকি রায়” এর সাথে বচসা বাঁধে এবং তারপর সেই বচসা গড়ায় বাড়ি পর্যন্ত। পূরবী নিজেই স্বীকার করেছেন যে  প্রথমে  তার দলবল নিয়ে তিনি চুমকি রায়ের বাড়ি  যান সেখানে আরও এক চোট বচসা করেন এর  পর রাহুল ওরফে মোশারফ পাল্টা চড়াও হয় পূরবীর বাড়িতে। পূরবীর বয়ান অনুযায়ী চুমকি রায়, তার মা সীমা রায় , মোশারফ হোসেন ও বৈশাখী মল্লিক দল বেঁধে প্রথমে বাইরে থেকে গালিগালাজ করেন এবং তারপর তাকে বাড়ির বাইরে এনে চুমকি রায় ওরফে ঋদ্ধি ও তার মা মারধর শুরু করেন। মোশারফ হোসেন কিছু পরে বাইরে চলে যায় এবং পরে দৌড়ে এসে পূরবীকে ধরে ও বাঁকিরা মারতে থাকে। এই ঘটনার পরই পূরবী পুলিশে  একটি ডায়েরী  করেন তবে সে ক্ষেত্রে কোনও এফআই আর হয়েছিল কিনা জানা যায় না।

প্রথম ভিডিও 

 

ভাইরাল ভিডিওতে পূরবী র বয়ান অনুযায়ী- স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের হস্তক্ষেপে ঘটনাটি চাপা দেওয়া হয় এবং পুলিশকে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া থেকে বিরত করা হয়। ঘটনা যাই হোক পেছনে ব্যাক্তিগত রাগ, রেশারেশি বা কোনও ত্রিকোণ প্রেমের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। মূলত ক্রন্দনরত অবস্থায় পূরবী যে দ্বিতীয় ভিডিওটি করেন তা উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে মনে হচ্ছে । ধারনা করা হচ্ছে সুবিচার না পেয়ে ঐ যুবতী ব্যাপারটিকে একটি ধর্মীয় রং দেওয়ার চেষ্টা করছেন। প্রথম ভিডিওতে আক্রমণকারীদের পরিষ্কার পরিচয় দিলেও পরে আক্রমণকারীদের বর্ণনা দিতে গিয়ে “মুসলিম যুবক” শব্দটি বার বার উচ্চারন করছিলেন পূরবী কিন্তু তার সাথে অন্যান্য যারা ছিল, তারা যে অন্য ধর্মের  সে কথা একবারও উল্লেখ করেননি। যদি এই প্রচার উদ্দেশ্যমূলক হয়ে  থাকে তবে এর পেছনে কোনও উগ্র ধর্মীয় সংগঠন বা রাজনৈতিক দলের প্ররোচনা আছে কিনা সে সম্পর্কে এখনো কোন পরিস্কার তথ্য পাওয়া যায়নি তবে আসল ঘটনার প্রেক্ষাপট কে চাপা দিয়ে যে ভাবে ঘটনাটিকে ধর্মীয় রং দিয়ে প্রকাশ করা হচ্ছে তাতে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বাংলার শান্তিপ্রিয় ধর্মনিরপেক্ষ জনগণ ।

পূরবী ব্যানার্জির ফেসবুক পেজ লিঙ্ক –

 

One thought on “ধর্ম নয় বরং অন্য কোনও কারনে বচসা, পূরবীর ভাইরাল ভিডিওর সত্যতা

  • December 18, 2018 at 4:58 pm
    Permalink

    অকারণ ধর্মীয় রং কেনো?

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *