গৌরী লঙ্কেশের ‘হত্যাকারী’কে ‘দেশপ্রেমী’ আখ্যা দিয়ে পরিবারের জন্য চাঁদা তোলা শুরু করল ‘শ্রী রাম সেনা’

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

গৌরি লঙ্কেশের হত্যায় অভিযুক্তর পরিবারের জন্য চাঁদা তোলা শুরু করল  শ্রীরাম সেনা

মোদী রাজে ধর্মীয় কারণে মারধোর, অত্যাচার ও হত্যা ক্রমেই জলভাত হয়ে গেছে ভারতবর্ষে! কিন্তু তার চাইতেও ভয়ঙ্কর প্রবণতা যা দেখা দিয়েছে তা হল এই ধরনের সাম্প্রদায়িক হিংসাকে প্রকাশ্যে স্বীকৃতি দান!  আখলাক হত্যাকারীদের চাকরি, আফ্রাজুলের হত্যাকারীর বেশে সাজিয়ে,  রামচন্দ্রের আসনে বসিয়ে পদযাত্রা,  নিত্য নতুন অত্যাচারের ভিডিওর গর্বিত প্রচার তো আছেই, আছে প্রকাশ্যে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে হুমকির ভিডিও ইত্যাদি তবে এই ঘটনার সাথে সম্প্রতি আরো এক নতুন অধ্যায় যুক্ত হল।

সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ এর হত্যায় অভিযুক্ত পরশুরাম ওয়াঘমোরের ছবি এর পূর্বেই ‘শ্রীরাম সেনা‘ প্রধান প্রমোদ মুথালিকের সাথে পাওয়া গেছিল এবং ওই ছবি ভাইরালও হয়েছিল কিছুদিন আগে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই সময়ে মুথালিক- পরশুরাম ওয়াঘমোরের  সাথে তার সম্পর্ক অস্বীকার করেন এবং এমনকি চিনতেও অস্বীকার করেন ওয়াঘমোরেকে কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই মুথালিকের সাথে ওয়াঘমোরের ও তার দলের সম্পর্ক দিনের আলোর মত পরিষ্কার হয়ে গেছে যখন দেখা যাচ্ছে  তাদের ফেসবুক পেজে ওয়াঘমোরের পরিবারের জন্য আর্থিক অনুদান তুলতে শুরু করেছে শ্রীরাম সেনা। এই ফেসবুক পোস্টে  সমর্থকদের উদ্দেশ্যে লেখা হয় “আপনি কি আপনার উপার্জনের একটা অংশ, আপনার খাবারের একটা টুকরো একজন দেশপ্রেমীর সাথে ভাগ করে নিতে পারেন না?  পপরশুরাম ওয়াঘমোরের পরিবার  অভাবের ভেতর দিয়ে চলেছে, দয়া করে অর্থ দিয়ে তাদের সাহায্য করুন”। এই পোস্টে আর্থিক অনুদানের আবেদনের পাশাপাশি ওয়াঘমোরের একটি ছবি এবং একটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নাম্বারও দেওয়া হয়েছে।

 

সেনার মহিলা শাখার প্রধান এবং বিজেপির যুব মোর্চার সদস্য – ‘মঞ্চলেশ্বরী তনাস্যাল’ নাম্নী মহিলা যে পোস্টটি ফেসবুকে দিয়েছেন তা আরও ভীতিপ্রদ। তিনি লিখেছেন “যদি হিন্দু-বিরোধী কাজকর্মের সাথে যুক্ত কিছু লোক এদেশে হিন্দুত্বের ভিত নড়িয়ে দিতে চায় তাহলে ঘরে ঘরে একজন করে পরশুরাম ওয়াঘমোরে জন্ম হবে।” যদিও ‘দ্য নিউজ মিনিট ‘নামক পত্রিকার সাথে কথা বলতে গিয়ে প্রমোদ মুথালিক সব অভিযোগই অস্বীকার করেছেন।  মঞ্চলেশ্বরী এর সাথে শ্রীরাম সেনার সম্পর্কের বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন -” মঞ্চলেশ্বরী কয়েক বছর আগেই সেনা ত্যাগ করেছেন এবং বিজেপিতে যোগদান করেছেন। তাছাড়া আর্থিক অনুদান তোলা হচ্ছে একটি দুঃস্থ পরিবাজ্যের সাহায্যের জন্য, রামসেনা এটা করছে তার  কারণ তারা ঐ গরীব পরিবারের প্রতি সহানুভূতিপূর্ণ, এখানে পরশুরাম ওয়াঘমোরের কোন ভূমিকাই নেই।

 

 

Special Investigation Team (SIT) কথিত ভাবে এর মধ্যেই পরশুরাম ওয়াঘমোরের স্বীকারোক্তি আদায় করেছে বলে সুত্রের খবর।  সূত্র অনুযায়ী ওয়াঘমোরে- “গৌরী লঙ্কেশের হত্যার দিনের অর্থাৎ ৫ই সেপ্টেম্বরের আগেই তার বাড়ি পৌঁছেছিলেন তাকে হত্যা করতে কিন্তু গৌরী লঙ্কেশ বাইরে বেরননি।”

“৫ই সেপ্টেম্বর গৌরী লঙ্কেশের হত্যার দু’দিন আগেই ওয়াঘমোরেকে নিয়ে গৌরী লঙ্কেশ এর বাড়ির সামনে নামিয়ে দেয় এক জন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি সম্ভবত ঐ দিনই গৌরীকে হত্যার কন্ট্রাক্ট দেওয়া হয়। এরপর ৫ই সেপ্টেম্বর রাত্রে আরেকজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি ওয়াঘমোরেকে তুলে নিয়ে গিয়ে অস্ত্র দেয় । ওয়াঘমোরে এরপর গৌরীকে হত্যা করেন। এখন SIT আরো তিনজন সন্দেহজনক ব্যক্তি কে ধরার চেষ্টা করছেন যার মধ্যে একজন হলেন নিহাল এলিয়াস ডাডা,  ওয়াঘমোরেকে যারা অস্ত্র তুলে দিয়েছিলেন তিনি তাদের মধ্যে অন্যতম।

SIT জিজ্ঞাসাবাদের সময় চাঞ্চল্যকর বিবৃতি দেন ওয়াঘমোরে। তার মতে তিনি জানতেনই না কাকে তিনি হত্যা করছেন। তিনি বিবৃতি ছিল ” আমাকে ২০১৭র মে মাসে বলা হয় যে আমার ধর্মকে রক্ষা করতে আমাকে একজনকে খুন করতে হবে। আমি জানতাম না সেই ব্যাক্তির পরিচয়, এখন আমি অনুভব করি আমার ঐ মহিলাকে হত্যা করা উচিৎ হয়নি”

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *