হকার দম্পতির হাতে গড়া অনাথাশ্রম! মেয়ের জন্মদিনে ফেসবুক লাইভ হল ভাইরাল!

জন্মদিনে বরফট্টাই করে পার্টি নয়,কবজি ডুবিয়ে  বিরিয়ানি বা চিকেন লেগ পিস নয়, নয় বিলিতি সুরে বার্থডে ক্যারল  – মেয়ের জন্মদিনে তারা কাটালেন অনাথ শিশুদের মাঝে। ‘তারা’ হলেন  স্ত্রী দেবাদ্রিতা গুপ্ত, স্বামী  অর্ক গুপ্ত  আর তাদের তিন বছরের ছোট্ট মেয়ে পেখম। আর অখ্যাত সেই  অনাথ আশ্রমকে ফেসবুক লাইভের মাধ্যমে ফেসবুকে  তুলে ধরতেই ভাইরাল হয়ে গেল সেই  সুন্দর ভিডিওটি । হ্যাঁ সুন্দরই বটে! কয়েক কাঠা জমির উপর এক হকার দম্পতি গড়ে তুলেছেন একটা ছোট্ট অনাথাশ্রম। আমরা যখন জীবনের সুখ-সাচ্ছন্দ্য়ের-চাহিদার ঘূর্ণিতে পড়ে ক্রমশ তলিয়ে যাচ্ছি। তখন শহরতলীর কোনও অনামি পাড়ায়  কারা যেন খুঁজে পেয়েছেন  জীবনের অন্য এক মানে।

কঠোর দারিদ্রের ভেতর তিলতিল করে জমানো সামান্য কিছু পয়সা নিয়ে তারা ভাবেননি কি ভাবে আরও একটু ভালো থাকা যায়, বরং তারা ভালো রাখতে চেয়েছেন ২১ টা ছোট ছোট  প্রাণকে,  তাই গড়ে তুলেছেন “শান্তিধাম  অনাথ আশ্রম”।  বিশ্বজিৎ বিশ্বাস ও পূর্ণিমা বিশ্বাস সাধের এই পরিবার যদিও খুব একটা স্বচ্ছল নয় তবে সে ছবিও দেখাতে ভোলেননি অর্ক।  বিশ্বজিৎ জানিয়েছেন এ নির্মাণে তার প্রধান সহযোগী স্ত্রী পূর্ণিমা । পূর্ণিমা জানান -এই আশ্রমের শুরু ২০০৯ থেকে, বলেছেন তাদের কঠিন লড়াইয়ের কথা- ” আমরা দুজন ট্রেনে হকারি করি, আশ্রম করা সম্ভব হতনা যদিনা আপনাদের মত মানুষেরা থাকতেন, আপনাদের এই ভালো লাগার কথা আরও কিছু মানুষকে বলবেন যাতে আমাদের সঙ্গে তারাও আসেন” ভিডিওর মাধ্যমে নিজেদের ইচ্ছের কোথাও জানিয়েছেন পূর্ণিমা ” আমাদের একটা ছোট স্কুল করার খুব ইচ্ছা, বাচ্চাদের রেললাইন টপকে যেতে হয়, নিজেরা পৌঁছে দেওয়ার পরও  আমরা খুব টেনশানে থাকি সেই জন্য আশ্রমের ভেতরে একটা প্রাইমারী স্কুল করতে পারলে ভালো হত, সেটার জন্য যদি কেউ সাহায্য করে খুব ভালো হয়” । অর্ক আশ্রমটা ঘুরে দেখান এবং সবশেষে দর্শকদের নিয়ে যান আশ্রমের রান্নাঘরে। দেখতে দেখতে আবেগপ্রবণ হয়ে যেতে হয়! কি করুন কষ্টে আর কঠিন চেষ্টায় চলেছে ২১ টা বাচ্চার রান্না। ভাঙা ছাউনির নীচে কম্বল দিয়ে ঘেরা একটা জায়গা, সেখানেই চলছে রান্নাবান্না। অর্ক জানান যে তিনি ও তার স্ত্রী কিছু সাহায্য করছেন যাতে কিছুটা মেরামত  হবে ঐ রান্না ঘর। পুরো আশ্রম আর তার সদস্যদের সাথে আলাপের পর সব শেষে ক্যামেরায় দেখা যায় তাকে, যার জন্য সেদিনের  আয়োজন , সে অর্ক-দেবাদ্রিতার কন্যা, বার্থডে গার্ল “পেখম”। ক্যামেরা পেখমের সামনে ধরতেই সে লজ্জা পেয়ে সটান শুয়ে পড়ে, মা জানান সারাদিন পরে এখন সে টায়ার্ড।

https://www.facebook.com/debadritasaha/videos/1732033743559911/

এই ভিডিও  ফেসবুকে আপলোড হতেই লাইক আর শেয়ারের  বান ডাকে অনামী গৃহবধূ দেবাদ্রিতার লাইভ ভিডিওতে! প্রায়  আড়াই লাখ ভিউ, সাত হাজার লাইক আসে, দেড় হাজার বার শেয়ারও হয় । ওদের ভিডিও দেখে প্রচুর মানুষ এগিয়ে আসছেন সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে। ভিডিওর কমেন্টে মানুষের প্রশ্নের উত্তরে অনেক কথাই জানান দেবাদ্রিতা। শুভদিনে গরীব দুঃখীকে খাওয়ানো, সাহায্য করার অভ্যাসটা তিনি পেয়েছেন বাবার কাছ থেকে। দেবাদ্রিতা আর অর্কর প্রয়াসে আজ হাওড়ার বেলমুড়ির শান্তিধাম আশ্রমের কথা ফেসবুকে মানুষের মুখেমুখে।

 শান্তিধাম  অনাথ আশ্রম ঃ কিছু ছবি

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *