‘জয় শ্রী রাম বলতে অস্বীকার করায়’ ঝাড়খণ্ডে মৌলানা আক্রান্ত

জয় শ্রী রাম’ বলতে অস্বীকার করায় ঝাড়খণ্ডে দুই মৌলানা কে আক্রমণ করল দুষ্কৃতীরা 

সাম্প্রদায়িক হিংসা যে আমাদের সমাজে খুব বেড়ে গেছে তা নয় বরং শুরু হয়েছে এক বিশেষ কায়দায় সমাজে সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা তৈরির কাজ আর বলাই বাহুল্য প্রত্যেক ক্ষেত্রেই অপরাধের প্যাটার্ন টা একই। হয় “জয় শ্রীরাম” বলতে বাধ্য করে মারধোর, নতুবা “ভারতমাতা কি জয়” না উচ্চারণ করলে দেশদ্রোহী বলে দাগিয়ে দিয়ে লাঞ্ছনা নিগ্রহ, নতুবা গরুপাচারকারি, বাচ্চাচোর ইত্যাদি সন্দেহে হত্যা। এবং সব ক্ষেত্রেই লক্ষ গরীব সংখ্যালঘু মানুষ! এমনই ঘটনা আবার ঘটে গেল ঝাড়খণ্ডে।

মওলানা আজহারুল ইসলাম ও তার ভাই মওলানা ইমরান গতকাল রাতে কিছু দুষ্কৃতীর দ্বারা নৃশংসভাবে আক্রান্ত  হন। তারা যখন ঝাড়খণ্ডের আগদু গ্রাম থেকে রাত্রিবেলা প্রায় দশটা নাগাদ তারাবি নামাজ শেষ করে গ্রাম নয়াসরাইএ ফিরছিলেন তখনই একদল অজ্ঞাত পরিচয় দুষ্কৃতী তাদের আক্রমণ করে। এই রাজ্যের পরপর ঘটে যাওয়া কিছু নৃশংস ঘটনার দীর্ঘ সারিতে এই ঘটনাটিও যুক্ত হল । অভিযোগ অনুযায়ী ঘটনার সময় কুড়ি-পঁচিশ জন লোক একটি স্করপিও গাড়িতে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং দালাদালি চকের কাছে তারা ওই দুই  মওলানা  ভাইকে আটকায় তারপর শুরু হয় ধর্ম তুলে গালিগালাজ এবং জয় শ্রী রাম বলার জন্য চাপ প্রয়োগ। কিন্তু তাদের দাবি না মেনে নেওয়ায় ওই দুষ্কৃতী দল হকি স্টিক নিয়ে তাদের উপর চড়াও হয়।  ঘটনাস্থল থেকে মওলানা ইমরান পালিয়ে পালিয়ে যান কিন্তু আজহারুল পালাতে পারেন না, প্রচন্ড ভাবে প্রহৃত হন তিনি তার দেহে মারাত্মক ক্ষত সৃষ্টি হয়। আজহারুলকে   আশঙ্কাজনক অবস্থায় রাচি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত প্রত্যক্ষদর্শীর মতে হাসপাতালে তাদের চিকিৎসার ত্রুটি ছিল তাই অন্য একটি হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয় পুলিশের সিনিয়র এস পি এই খবর শোনার পরে অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

ঝাড়খণ্ডে ক্রমেই বেড়ে চলেছে সংখ্যালঘুদের উপর আক্রমণ। গত মাসের শেষে একটি ইফতারের সময় আক্রান্ত হয় বেশ কয়েকটি সংখ্যালঘু পরিবার। কোডারমা জেলায় এই ঘটনা ঘটে। এর পূর্বে নওয়াদি গ্রামে ৩০ টি সংখ্যালঘু বাড়িতে ভাঙচুর চালায় গোরক্ষকেরা । এর আগে  জানুয়ারি মাসে একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে দাঙ্গা বাঁধে হাজারিবাগে। এভাবে একেরপর এক সাম্প্রদায়িক হিংসায় ক্রমেই আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠছে ঝাড়খণ্ড।

তথ্যসূত্র ১ 

তথ্যসূত্র ২

তথ্যসূত্র ৩ 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *